Friday , November 27 2020
Breaking News
Home / Exception / মিঠুনের যে বিরল রে’কর্ড এখনও ভা’ঙতে পারেনি কোনও বলিউড সুপারস্টার

মিঠুনের যে বিরল রে’কর্ড এখনও ভা’ঙতে পারেনি কোনও বলিউড সুপারস্টার

১৯৭৬ সালে মৃণাল সেন পরিচালিত ‘মৃগয়া’ দিয়ে বলিউডে অভিষেক হয়েছিল মিঠুন চক্রবর্তীর। প্রথম ছবিতেই বাজিমাত করেছিলেন। দারুণ ব্যবসা করেছিল ‘মৃগয়া’। সেরা নবীন অভিনেতা হিসেবে সে ছবির জন্য মিঠুন জাতীয় পুরস্কারও পেয়েছিলেন। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, এই একটা ছবিই তাকে সাফল্যের সিঁড়িতে উঠিয়ে দিয়েছিল।

এরপর কিছু ছবিতে তিনি খুব ছোট কাজ পেয়েছিলেন। কোনো কাজকেই ছোট করে দে’খতেন না মিঠুন। তাই শু’টিং সেটে স্পট বয়ের কাজও ক’রেছেন।

১৯৮২ সালের ‘ডিস্কো ডান্সার’ছবিটিই ছিল সেই সিঁড়ি, যা মিঠুনকে তারকা-খ্যাতির চূড়ায় পৌঁছে দেয়। ‘ডিস্কো ডান্সার’ করে ভারতের বাইরে, বিশেষ করে রাশিয়া এবং কাজাখস্তানেও তুমুল জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন তিনি।

সে সময় মিঠুনের তারকা-খ্যাতি কোন পর্যায়ে পৌঁছেছিল তা একটা ছোট কাহিনি দিয়েই বোঝা যাবে। ‘ডিস্কো ডান্সার’ ছবিটি মু’ক্তি পাওয়ার পর একটা অনুষ্ঠানে যোগ দিতে কাজাখস্তান গিয়েছিলেন অভিনেতা।

মিঠুন যে কাজাখস্তানে যাচ্ছেন, সে খবর আগেই পৌঁছে গিয়েছিল সেখানকার মানুষের কাছে। বিমানবন্দরের বাইরে লাখ লাখ মানুষের ভিড় জমেছিল শুধু মিঠুনকে এক ঝলক দেখবে বলে! কাজাখস্তান যে তাকে এতটা ভালোবাসা দেবে, তা কল্পনাতেও ছিল না নায়কের।

বিমানবন্দরের বাইরে পা রাখা মাত্রই ওই বিপুল সংখ্যক মানুষ একস’ঙ্গে ‘জিমি জিমি’ বলে চিৎকার শুরু করে। কারণ, ‘ডিস্কো ডান্সার’- মিঠুনের চরিত্রের নাম ছিল জিমি। মজার কথা হচ্ছে, ওই একই দিনে কাজাখস্তানের তৎকালীন প্রেসিডেন্টের একটি অনুষ্ঠানও ছিল। কিন্তু এত বেশি লোক মিঠুনের জন্য বিমানবন্দরের বাইরে চলে এসেছিলেন যে, প্রেসিডেন্টকে তার অনুষ্ঠান বা’তিল ক’রতে হয়েছিল।

About khan

Check Also

না খেয়ে থাকতে পারি, কিন্তু শা’রীরিক স’ম্পর্ক ছাড়া থাকতে পারি না: সামান্থা

না খেয়ে থাকতে পারলেও শারী’রিক স’ম্পর্ক ছাড়া থাকতে পারবেন না বলে মন্তব্য করেছেন তামিল ও ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You cannot copy content of this page