Thursday , September 23 2021
Breaking News

প্রতি বছর যেখানে হয় ‘মাছের বৃষ্টি’!

আমেরিকার হন্ডুরাসের লোকাচার বিদ্যায় মাছ বৃষ্টি এখন একটি সাধারণ ঘ’টনা। প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, এ অবিশ্বা’স্য প্রাকৃতিক ঘ’টনা ঘ’টে মে মাস থেকে জুলাই মাসের মাঝামাঝি। প্রথমে আকাশে কালো মেঘ জমে।

এরপর শুরু হয় তুমুল বৃষ্টি, সে স’ঙ্গে প্রবল বাতাস, বিদ্যুৎ চ’মক আর ব’জ্রপাত। অবিরাম এ বৃষ্টির স’ঙ্গে মাটিতে আছড়ে পরে অসংখ্য জীবন্ত মাছ । এ রকম চলে প্রায় ২-৩ ঘণ্টা। আর বৃষ্টি থেমে যাওয়ার পর শত শত জীবন্ত মাছ পড়ে থাকতে দেখা যায় মাটিতে।লোকজন এসব মাছ কুড়িয়ে নিয়ে রান্না করে খায়। ১৯৯৮ সাল থেকে স্থানীয় লোকজন এ প্রাকৃতিক ঘ’টনার ওপর ভিত্তি করে প্রতি বছর উৎসবেরও আয়োজন করে।

১৯৭০ সালে ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক চ্যানেলের পক্ষ থেকে একটি বিশেষ দল পা’ঠানো হয় হন্ডুরাসে। ওই দলের সদস্যরা ‘মাছের বৃষ্টি’র ঘ’টনার সত্যতা নি’শ্চিত করেন। ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক চ্যানেলের ওই সদস্যরা জা’নান, ওই অঞ্চলে আকাশ থেকে যে সব মাছের বৃষ্টি হয়, তা কোনো সামুদ্রিক মাছ নয়। সেগুলো মিষ্টি পানির মাছ।

আকাশ থেকে বৃষ্টির মতো ঝরে পড়া মাছগুলো কোনো নদী, পুকুর বা হ্রদের মতো মিষ্টি পানির জলা’শয়ের মাছ। শুধু তাই নয়; বেশির ভাগ মাছই প্রায় একই প্রজাতির। যদিও ১৯৭০ সালে হন্ডুরাসে ‘মাছের বৃষ্টি’র সত্যতা যাচাইয়ের জন্য সদস্যদল পা’ঠানো র বিষয়টি স্বী’কার করেনি ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক চ্যানেল ক’র্তৃপক্ষ।

যে এলাকায় প্রতি বছর একবার বা দুইবার মাছের বৃষ্টি হয়, আটলান্টিক মহাসাগর তার থেকে প্রায় দু’শ কিলোমিটার দূ’রে। অনেকে মনে করেন, টর্নেডো বা সামুদ্রিক ঝড় আটলান্টিক মহাসাগরের বিভিন্ন অংশের মাছ উড়িয়ে এনে এ অঞ্চলে ফে’লে । কিন্তু এমন ঘ’টনা প্রতি বছর কীভাবে সম্ভব, সে ব্যাপারে এখনো ধোঁয়াশা রয়েছে।

About khan

Check Also

কনস্টেবল বন্ধুকে নিয়ে এসপি’র স্ট্যাটাস, আবেগে ভাসছে নেটিজনেরা

বন্ধুত্ব পৃথিবীর সব থেকে বড় সম্পর্কের নাম।এই নামটি বা এই শব্দটি প্রতিটি মানুষের জীবনে একটি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *