Sunday , September 26 2021
Breaking News

রাস্তার কুকুর-বিড়ালদের জন্য বাড়ি লিখে দিলেন বৃদ্ধা।

সফেদ, পুলি, পার্ক, ভিম, নকুলদের নিয়ে বিশাল সংসার। প্রায় ৫০ জনের পাত পরে রোজ। কিন্তু এই বাড়ির বাসিন্দাদের মধ্যে এক মালকিন ছাড়া বাকিরা কুকুর, বিড়াল, হনুমান। আগামী দিনে অবশ্য এরাই হবে এই বাড়ির মালিক।

পশু-প্রেমের অনন্য নজির গড়ে নিজের বাড়িটাই দান করে দিয়েছেন বর্ধমানের বোরহাটের তৃপ্তি চক্রবর্তী। বছর ৮০ ছুঁই ছুঁই। অশীতপর তৃপ্তিদেবী সযত্নে লালন-পালন করছেন প্রায় ৪০টি কুকুর ও বিড়াল। রয়েছে কয়েকটি হনুমানও। অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষিকা তৃপ্তি দেবী চাকরি করার সময় থেকেই আহত, অসুস্থ পশুদের দেখলে সহানুভূতির হাত বাড়িয়ে দিতেন।

কেউ পশুদের আঘাত করলে তার প্রতিবাদও করতেন। ১৯৯৫ সালে অবসর নেওয়ার পরে তাঁর ধ্যানজ্ঞান হয়ে ওঠে পশুসেবা। বাড়িতে তৈরি করেন পশুসেবা কেন্দ্র।

একা তো আর পেরে ওঠেন না। তাই ৫ জন কর্মীও রেখেছেন তাঁর পোষ্যদের দেখভালের জন্য। বয়সও হচ্ছে। তাই তিনি যখন থাকবেন না তখন কী হবে ওদের! এই ভাবনায় পশুসেবা সংস্থাকে বসত ভিটে-সহ যাবতীয় সম্পত্তি আগেভাগেই লিখে দিয়েছেন। দান করেছেন সঞ্চিত অর্থও।

৫ জন কর্মীর বেতন এবং পোষ্যদের খোরাকি মিলিয়ে মাসে খরচ হয় প্রায় ৪০,০০০ টাকা। বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে তাঁর সংস্থার কর্মীরা আহত ও অসুস্থ কুকুর, বিড়াল, হনুমান সংগ্রহ নিয়ে আসেন। তার পরে তৃপ্তি দেবী নিজের হাতে তাদের সেবা করে সুস্থ করে তোলেন। আহত পশুদের সুস্থ করে কখনও তার জায়গায় ফিরিয়ে দেন, আবার কেউ যেতে না চাইলে রেখেও দেন। সংসার বড় হচ্ছে। তবে তাতেও ক্লান্তি নেই। ওদের সেবা করেই তৃপ্তি পান তৃপ্তদেবী।

About khan

Check Also

বাবার সামনেই হাতেনাতে ধরা পড়েছিলেন সানি লিওন

গোটা জীবন সানি লি’ওনের যেন এখন খোলা বই। কারণ তার বায়োপিক ওয়েব সিরিজ ‘করণজিৎ কৌর: …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *