Thursday , September 23 2021
Breaking News

বাংলা সাহিত্যের প্রাচীন যুগ ও মধ্যযুগ থেকে কিছু আনকমন ও গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নোত্তর । বিসিএসে কাজে দিবে

বাংলা সাহিত্যের প্রাচীন যুগ ও মধ্যযুগ থেকে কিছু আনকমন ও গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নোত্তর । ১। ‘‘কাআ তরুবর পাঞ্চ বি ডাল চঞ্চল চীএ পইঠা কাল ।। ‘’ – পঙক্তিটি কার ? = লুইপা ।চর্যাপদের ১ম পদ । ২। চর্যাপদের কোন কোন পদ পাওয়া যায়নি ? = ২৩ এর অর্ধেক , ২৪, ২৫, ৪৮ ৩। চর্যার কবিদের মধ্যে কোন কবি সর্বাপেক্ষা প্রাচীন বলে মনে করা হয় ? = শবরপা ( ড. শহীদুল্লাহর মতে) ৪। ড. শহীদুল্লাহর মতে চর্যার কোন কোন কবি বঙাল দেশের লোক ? = ভুসুকুপা ও শবরপা

৫। চর্যাপদের কবিদের মধ্যে কোন কবির কোন পদ পাওয়া যায়নি ? = তন্ত্রী পা ৬। বাংলা সাহিত্যের যুগ সন্ধিক্ষণ কোনটি ? = ১৭৬০-১৮৬০ ৭ । চম্পুকাব্য কী ? =গদ্য ও পদ্য মিশ্রিত কাব্যকে চম্পুকাব্য বলে । যেমন:রামাই পণ্ডিতের শূন্যপুরাণ ৮ । ‘নিরঞ্জনের উষ্মা’ কার লেখা ? = সহদেব চক্রবর্তী ৯ । বাংলা সাহিত্যের কোন যুগের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল ‘ স্বাজাত্যবোধ, স্বদেশপ্রেম , ব্যক্তিস্বাধীনতা, নারী স্বাধীনতা ? = আধুনিক যুগের ১০ । বাংলা সাহিত্যের মধ্যযুগের ১ম কাব্য বড়ু চন্ডীদাস রচিত ‘শ্রীকৃষ্ণকীর্তন ‘ কবে বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদ থেকে বসন্তরঞ্জন রায় বিদ্বদ্বলভ এর সম্পাদনায় প্রকাশিত হয় ? = ১৯১৬ ( আবিষ্কার ১৯০৯ ) ১১। শ্রীকৃষ্ণকীর্তন কোন শতকের রচিত হয়েছে ? = পঞ্চদশ শতকে ( ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ ও সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়ের মতে) ১২।‘ কানু ছাড়া গীত নাই‘ কোন যুগে সত্য ছিল ? = মধ্যযুগে ১৩ । ‘শ্রীকৃষ্ণকীর্তন‘ কাব্য কয় খন্ডের ? = ১৩ ১৪। কোন মহাপুরুষ বাংলা সাহিত্যে একটি পঙক্তি না লিখলেও তাঁর নামে একটি যুগের সৃষ্টি হয়েছে ? =

শ্রীচৈতন্যদেব । তাঁর ডাক নাম ‘নিমাই’। ১৫। কড়চা কী ? = দিনলিপি বা ডায়েরী ১৬ । ‘ধূয়া’ কী ? = একটানা নির্দিষ্ট স্তরে একটি পদ গান করাকে ধূয়া বলে ১৭ । গৌরচন্দ্রিকা কী ? = গৌরলীলার পদাবলী ১৮ । বৈষ্ণব পদাবলীর প্রথম পদকর্তা কে ? = জয়দেব । ‘গীতগোবিন্দম ১৯ । পূ্র্বরাগ কী ? = মিলনের পূর্বে দর্শন , নাম শ্রবণ প্রভৃতি দ্বারা নায়ক নায়িকার মনে পরস্পরের প্রতি যে অনুরাগ জন্মে । শ্রেষ্ঠ পদকর্তা > চন্ডীদাস ২০ । অভিসার কী ? = প্রেমিক বা প্রেমিকা গোপনে কোনো একটি স্থানে পরস্পরের সাথে মিলিত হবার যাত্রা । বৈষ্ণব পদাবলীতে ৮প্রকার অভিসারের উল্লেখ রয়েছে ।

২১। বিপ্রলম্ভ শৃঙ্গার কী ? = রাধা কৃষ্ণের সাময়িক বিচ্ছেদ বা বিরহ । ২২। মাথুর কী ? = চির বিরহ আর্তিমূলক পদাবলী ২৩। ভণিতা কী ? = প্রাচীন কাবে কবিতার শেষে কবিরা নিজের নাম যোজনা করে যে আত্মপরিচয় দিতেন সেটিই ভণিতা ২৪। খণ্ডিতা কী ? = নায়িকা সাজসাজ্জা করে সারারাত কুঞ্জবনে নায়কের জন্য প্রতীক্ষারত । নায়ক প্রতিনায়িকার সান্নিধ্যে নিশিযাপন করে প্রভাতে নায়িকার নিকট আগমন করলে নায়িকা অত্যন্ত কুপিতা হন । এই অবস্থাকে বলা হয় ‘খণ্ডিতা ২৫ । মঙ্গলকাব্যের প্রধান শাখা কয়টি ? = ৩টি । মনসামঙ্গল , চন্ডীমঙ্গল , অন্নদামঙ্গল ২৬ । সুকবি বল্লভ কার উপাধি ? = কবি নারায়ন দেবের ২৭ । একটি মঙ্গলকাব্যে সাধারণত কতটি অংশ থাকে ? = ৫টি ২৮ । মঙ্গলকাব্যে কতজন কবির সন্ধান পাওয়া যায় ? = ৬২ জন । ২৯ । চন্ডীমঙ্গলকাব্যের কোন কবিকে ‘স্বভাবকবি’ বলা হয় ? = দ্বিজমাধবকে ৩০ । বাইশা কী ? = বাইশজন কবি রচিত মনসামঙ্গলের

বিভিন্ন অংশের সংকলন । ৩১। চৌতিশা কী ? = বিপন্ন নায়ক -নায়িকা চৌত্রিশ অক্ষরে ইস্টদেবতার যে স্তব রচনা করে ৩২। বারোমাসী বা বারোমাস্যা কী ? = প্রাচীন বাংলা সাহিত্যের লৌকিক কাহিনি বর্ণনায় নায়ক- নায়িকার বারো মাসের সুখ -দুঃখের বিবরণ । ৩৩ ।মনসামঙ্গলের অন্য নাম কী ? = পদ্মপূরাণ ৩৪ । মনসামঙ্গলের আদি কবি কে ? = কানা হারিদত্ত ৩৫। চন্ডীমঙ্গলের আদি কবি কে ? = মানিক দত্ত ( শ্রেষ্ঠ কবি > মুকুন্দরাম চক্রবর্তী ) ৩৬। অন্নদামঙ্গলের প্রধান কবি কে ? = ভারতচন্দ্র রায় গুণাকর । ( মধ্যযুগের শেষ ও শ্রেষ্ঠ কবি ) ৩৭ । ধর্মমঙ্গলের আদি কবি কে ? = ময়ুর ভট্ট ( শ্রেষ্ঠকবি > ঘনরাম চক্রবর্তী ) ৩৭ । মনসামঙ্গলের উল্লেখযোগ্য চরিত্রগুলো হল = চাঁদ সওদাগর , বেহুলা, লখিন্দর । ৩৮ । চন্ডীমঙ্গলের উল্লেখযোগ্য চরিত্রগুলো হল = কালকেতু , ফুল্লরা , ধনপতি , ভাঁড়ুদ্ত্ত , মুরারী শীল ৩৯ । অন্নদামঙ্গলের উল্লেখযোগ্য চরিত্রগুলো হল = মানসিংহ , ভবানন্দ , বিদ্যাসুন্দর , মালিনী ৪০ । মনসামঙ্গলের উপখ্যান ছিল = ২টি ৪১ । অন্নদামঙ্গল কাব্য কত খণ্ডে বিভক্ত? = ৩

৪২। ধর্মমঙ্গলের কাহিনী কয়টি ? = ২টি । লাউসেনের গল্প ও রাজা হরিশচন্দ্রের গল্প । ৪৩। কালিকামঙ্গল কী ? = দেবী কালীর মাহাত্ম্য বর্ণনামূলক গ্রন্থ ( আদি কবি > কবি কঙ্ক ) ৪৪ । বিদ্যাসুন্দর কাব্য কী ? = পুরুষ বিদ্যা খোঁজে আর নারী প্রত্যাশা করে সুন্দর পতি – এই কাহিনির উপর ভিত্তিকে রচিত কাব্য । ৪৫। মধ্যযুগের সর্বশ্রেষ্ঠ ও শেষ কবি ভারতচন্দ্র কে রায়গুণাকর উপাধি দেয় কে ? = মহারাজ কৃষ্ণচন্দ্র ( গোপাল ভাঁড়ে রাজা’) ৪৬। অন্নদা মঙ্গলকাব্যে ভারতচন্দ্র রায়গুণাকরের কিছু বিখ্যাত উক্তি ১। আমার সন্তান যেন থাকে দুধেভাতে ( ইশ্বরীপাটনির মুখ দিয়ে বলানো হয় ) ২। জন্মভূমি জননী স্বর্গের গরিয়সী ৩। নগর পুড়িলে দেবালয় কি এড়ায় ? ৪। মন্ত্রের সাধন কিংবা শরীর পতন ৫। বড়র পীরিত বালির বাঁধ ক্ষণে হাতে খড়ি , ক্ষণেক চাঁদ

About khan

Check Also

চাকরি ছেড়ে আচার বিক্রি করে ৮ লক্ষ টাকা আয় সামিরার; ৭দেশে রপ্তানি

বগুড়ার মেয়ে সামিরা সামছাদ। বগুড়া সরকারি আজিজুল হক কলেজ থেকে হিসাববিজ্ঞানে স্নাতক সমাপনী পরীক্ষা দিয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *