Friday , December 4 2020
Breaking News
Home / দেশ-বিদেশ / পৃথিবীর সবথেকে উঁচু বাঁশের সাঁকোটা হয়ত বাংলাদেশেই

পৃথিবীর সবথেকে উঁচু বাঁশের সাঁকোটা হয়ত বাংলাদেশেই

খিলগাঁও এলাকার ত্রিমোহনী নদীর ওপারে নাসিরাবাদ ইউনিয়নের নয়াপাড়া। এ নদী পারাপারের জন্য বানানো হয়েছে বাঁশের সাঁকো। তবে ধারণা করা হয়, এটি বাংলাদেশের সবচেয়ে উঁচু বাঁশের সাঁকো। এই নদীর ওপর একটি সেতুর জন্য দিনের পর দিন জনপ্রতিনিধির পেছনে ঘুরেছেন এলাকাবাসী। কিন্তু কোনো ফল না পেয়ে শেষে নিজেরাই উদ্যোগী হয়ে বিশালাকৃতির এই সাঁকো নির্মাণ করেন।

ছবি: সংগৃহীত
কেন এই সাঁকো?

এই নদী দিয়ে চলে বড় বড় কার্গো জাহাজ যাতায়াত করে। তাই সাধারণ সাঁকো বানালে লোকচলাচল করা যাবে, কিন্তু নদীতে জাহাজ চলতে পারবে না। বাধ্য হয়ে নিজেদের অর্থায়নে নির্মাণ করেন এই ৬০ ফুট উঁচু বাঁশের সাঁকো। ২০১৭ সালের শুরুর দিকে নয়াপাড়া ও ত্রিমোহনী এলাকার বাসিন্দারা চাঁদা তুলে সেতুটি নির্মাণ করেন। এতে নেতৃত্ব দেন স্থানীয় মুরব্বি সাহাবুদ্দিন। নির্মাণ ব্যয়ের প্রায় আড়াই লাখ টাকা জোগান দিয়েছে স্থানীয় বাসিন্দারা।

সাঁকোটি ৩০০ ফুটের বেশি দীর্ঘ, উচ্চতা প্রায় ৬০ ফুট। নিচ দিয়ে চলে বড় কার্গো। এখন এই শুষ্ক মৌসুমে সেতুর ওপর থেকে নিচে পানির স্তরের ফারাক এমন যে বড় কোনো জাহাজ অনায়াসে চলতে পারবে।

অভিযোগ!

স্থানীয় বাসিন্দা শামসুল হক বলেন, ‘অনেক বছর ধরে এলাকার লোকজন নদী পারাপারের জন্য একটা সেতু চাইছে নেতাদের কাছে। তারাও আশ্বাস দিয়েছে। কিন্তু কেউ কথা রাখেনি।’

মোহাম্মদ আলী নামের এলাকার একজন মুরব্বির অভিযোগ করেন, এখানে সেতু কিংবা সাঁকোর নাম করে কেউ কেউ সরকারি টাকা এনে আত্মসাৎ করেছেন। তিনি বলেন, ‘আমরা অনেক নেতাদের জানাইছি। এমপিও অনেকবার বলছে বানাইয়া দিবে। ছোট ছোট নেতারা টাকা আইনা খায়া ফেলে। ব্রিজ হয় নাই।’

তিনি বলেন, ‘আমরা ভাইরা যারা আছে, সবাই উদ্যোগ নিয়া, এলাকার লোকজনের কাছ থেকে কমবেশি টাকা উঠাইয়া ব্রিজটা বানাইছি।’

বিশালাকার এই উঁচু বাঁশের সাঁকো দেখে অবাক হচ্ছেন এই এলাকায় প্রথমবার যাতায়াতকারী লোকজন। নগরে এত বড় বাঁশের সাঁকো, এত উঁচু! কারও কারও মতে, এটি দেশের সবচেয়ে উঁচু বাঁশের সাঁকো। আবার কেউ বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু বাঁশের সেতু বলে ঘোষণা দিয়ে বসেন।

About khan

Check Also

মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুড়ে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন থা’নার ওসি

সাধারন মানুষের কল্যানে সব সময় কাজ করে যাচ্ছেন চুয়াডাঙ্গার দর্শনা থা’নার অফিসার্স ইনচার্জ ওসি মাহবুবুর ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You cannot copy content of this page