Tuesday , November 24 2020
Breaking News
Home / Education / শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতিতে একটুখানি কৌশল আপনাকে পৌঁছে দিতে পারে কাঙ্খিত গন্তব্যে

শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতিতে একটুখানি কৌশল আপনাকে পৌঁছে দিতে পারে কাঙ্খিত গন্তব্যে

মাহামুদুল হাসান পারভেজ
সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট

প্রথমেই বলি আপনার প্রস্তুতি যদি মোটামুটি ভালো হয় তাইলে এখন কিছু কৌশল অবলম্বন করুন যেন প্রস্তুতির শতভাগ পরীক্ষায় কাজে লাগাতে পারেন। এই সময়ে সবচেয়ে সমস্যা হয় মোটিভেশন ধরে রাখা; বারবার মনে হতে পারে কিছুই পড়িনি/এই পড়া দিয়ে হবে না /এইবার কোনরকম দিয়ে অভিজ্ঞতা নিই, পরেরবার ভালো করে দিব ইত্যাদি। কিন্তু মাথায় রাখেন লিখিত পরীক্ষা দিতে পারা একটা বিশাল সুযোগ তাই লাস্ট মোমেন্টে এসে হাল ছেড়ে এই সুযোগ মিস করবেন না।

শেষ মুহূর্তে কী পড়বেন আর কী না পড়বেন এই নিয়েই আমার ক্ষুদ্র প্রচেষ্টাঃ
১-বিগত সালের প্রশ্নগুলো থেকে ধারণা নিয়ে প্রতিটি সাব্জেক্টের যেসব টপিকস এ ফুল মার্কস/কাছাকাছি মার্কস পাওয়া যায় সেগুলো নিজস্ব কৌশল অবলম্বন করে বারবার রিভাইস করুন।

*বাংলাঃ গ্রামার এবং লিটারেচারের ৬০মার্কস বিগত সালের প্রশ্ন দেখে গুছিয়ে বারবার পড়ুন ।কয়েকটা রচনা টার্গেট করে পয়েন্টগুলো প্রয়োজনীয় ডাটা/তথ্য দিয়ে লিখে রাখুন,পরীক্ষার আগের দিন চোখ বুলিয়ে নিলেই হবে। এক প্রিপারেশনে বাংলা, ইংলিশ দুই রচনাই কভার হয়ে যায়।

*ইংরেজিঃ গুরুত্বপূর্ণ ভোকাবুলারি বারবার প্র‍্যাকটিস করা, অনুবাদের জন্য বিষয় সংশ্লিষ্ট ভোকাবুলারি দেখে রাখা যেমনঃ অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত ; পরিবেশ ও জালবায়ু সংক্রান্ত , মুক্তিযুদ্ধ প্রভৃতি। গ্রামার অংশের রুলগুলো দেখুন আর সময় পেলে একটু অনুবাদ প্র‍্যাকটিস করেন।

*বাংলাদেশ বিষয়াবলীঃ সংবিধান অংশ(গুরুত্বপূর্ণ অনুচ্ছেদ এবং ধারা ), মুক্তিযুদ্ধ অংশ অত্যন্ত মনোযোগ দিয়ে পড়েন যেন নির্ভুল লিখতে পারেন ; অন্যান্য টপিকগুলোর জন্য প্রয়োজনীয় ডাটা দেখে রাখুন।

*আর্ন্তজাতিকঃ বিগত সালের প্রশ্ন দেখে টীকা/সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন পড়ুন আর রিভাইস করেন, বড় প্রশ্নের জন্য সংশ্লিষ্ট বিষয়ের ডাটা/তথ্য গুলো বারবার দেখুন আর উত্তর কিভাবে সাজাবেন এখনি প্ল্যান করে ফেলুন।

*গাণিতিক অংশঃ সব টাইপের অংক অন্তত একবার করে প্র‍্যাকটিস করুন বিশেষ করে আপনি যে অংশগুলোতে দুর্বল সেগুলো বেশি প্র‍্যাকটিস করেন। সুযোগ করে একদিন মানসিক দক্ষতার বিগত সালের প্রশ্নগুলো পড়ে ফেলুন অনেক কমন পাবেন।

*সাধারণ বিজ্ঞানঃ ইলেকট্রিক্যাল, কম্পিউটার এবং বিজ্ঞান অংশের সংঙ্গা, বৈশিষ্ট্য,চিত্র,সংকেত, পার্থক্য টাইপ প্রশ্ন বেশি করে পড়ুন, এইগুলোতে ফুল মার্কস পাওয়া যায় ।

২-প্রতিদিন ১ঘন্টা লিখার চেষ্টা করেন, হাত যত চালু থাকবে ততো বেশি লিখতে পারবেন। এক্ষেত্রে সময় ধরে প্রতি ৩/৪ মিনিটে এক পাতা লিখার চেষ্টা করেন।

৩-পরীক্ষায় ডাটা দেয়া নিয়ে অনেকের মনে প্রশ্ন থাকে, আমার অভিমত অর্থনৈতিক সমীক্ষা ২০১৯ ও অন্যান্য অথেনটিক সোর্স থেকে ডাটা, তথ্য, চার্ট, গ্রাফ খাতায় লিখে অন্য পড়ার ফাঁকে ফাঁকে পড়ুন। অনেক সময় প্রশ্ন কমন না পড়লেও এই তথ্যগুলোর সাহায্যে উত্তর আকর্ষণীয় করা যায়।

৪-বিগত সালের প্রশ্নগুলো দেখুন। এক্ষেত্রে ৩৮তম বিসিএস এ আসা প্রশ্নগুলো বাদ দিয়ে পডবেন না, অনেক সময় প্রশ্ন কিন্তু রিপিট হয়।

৫-খাতার সৌন্দর্য কিভাবে বৃদ্ধি করা যায় সেগুলো ভেবে রাখুন, কালার পেন ব্যবহার করবেন কিনা/করলে কিভাবে সময় ব্যবস্থাপনা করবেন সব প্ল্যান পরীক্ষার আগেই করে রাখুন।

৬-অনেক সময় পরীক্ষার আগের রাতের ভরসায় কিছু পড়া রেখে দেই, এটা না করা ভালো কারণ পরীক্ষার সিট দূরে পড়লে বাসায় এসে পড়ার এনার্জি থাকে না।

৭-হাতের লিখা নিয়ে কোন টেনশন করবেন না, অনেক খারাপ হাতের লিখা নিয়েও অনেক ভালো পজিশন নিয়ে ক্যাডার হওয়ার অসংখ্য উদাহরণ রয়েছে।

সবশেষে বলি আপনার প্রস্তুতি যতই ভালো হোক না কেন এই শেষ কয়দিনের কৌশলগত পরিকল্পনাই পারে আপনার এতোদিনের কষ্টকে সার্থক করতে। মনে রাখবেন ‘All’s Well That Ends Well’
সবার জন্য রইলো আন্তরিক শুভকামনা।

About khan

Check Also

৫০০মধ্যে ৪৯৯ নম্বর পেল রেকর্ড করলেন উচ্চমাধ্যমিকের ছাত্রী স্রোতশ্রী

পাঁচশ নম্বরের মধ্যে পেয়েছেন ৪৯৯ নম্বর। উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় অভাবনীয় সাফল্য পেয়েছে স্রোতশ্রী রায় নামে এক ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You cannot copy content of this page