Friday , December 4 2020
Breaking News
Home / Education / বিসিএস নিয়ে অবসেশন এবং কিছু বাস্তবতাঃ নিহাদ আদনান স্যার

বিসিএস নিয়ে অবসেশন এবং কিছু বাস্তবতাঃ নিহাদ আদনান স্যার

বিসিএস ক্যাডার হয়েও যোগদান না করা বা জব ছেড়ে দেয়া প্রসঙ্গে!!!

১। আমাদের সময় অর্থাৎ ২৮ তম বিসিএস এ পুলিশ ক্যাডারে ১ম হয়েছিলেন যিনি তিনি তখন ঢাকা ভার্সিটির আইবিএর প্রভাষক।

আমাদের সাথে যোগদানও করলেন পুলিশ ক্যাডারে,আমি আর উনি একই সাথে পলওয়েল মার্কেটে ইউনিফর্ম বানাবারও অর্ডার দিলাম।

পুলিশ ক্যাডার নাকি ওনার সবসময়ের স্বপ্ন ছিল, সেখানে আবার উনি হয়েছেন ১ম, স্বভাবতই খুবই উচ্ছ্বসিত ছিলেন উনি। সারদায় গিয়ে কী কী করব, সে নিয়ে গল্প করতাম আমরা!

যাই হোক, আমরা যোগদান করলাম ১ ডিসেম্বর, সবাই মিলে ১ সপ্তাহ পুলিশ সদর দপ্তরে ওরিয়েন্টেশন ক্লাসও করলাম! কিন্তু সব শেষে সারদা যাবার প্রাক্কালে উনি রিজাইন দিলেন, যোগদান করলেন না পুলিশে, থেকে গেলেন আইবিএর প্রভাষক হিসেবে
(যদিও পরবর্তীতে উনি ৩১ তমতে আবার বিসিএস ক্যাডার হয়েছেন)

২। একই সাথে আরও ৪ জন শেষ পর্যন্ত যোগদানই করলেন না, পুলিশ ক্যাডারে ৮ম যিনি বুয়েট থেকে মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ করেছিলেন, বর্তমানে উনি মায়ানমার ভিত্তিক একটি ইংলিশ জার্নালের রিপোর্টার। পুলিশ ক্যাডারে ১০ম, তিনিও ঢাকা ভার্সিটির প্রভাষক ছিলেন, তিনিও থেকে গেলেন সেখানেই। আরও দুইজন ছিলেন সেই তালিকায়, একজন সম্ভবত সহকারি জজ ছিলেন, আরেকজন আপু ছিলেন নর্থ সাউথের।

৩। এবার অন্যান্য ক্যাডারের কথায় আসি। যদি ভুল না করি, আমাদের ব্যাচেই পররাষ্ট্রের ২ জন সম্ভবত জব ছেড়েছেন, পেশায় ডাক্তার ছিলেন, আবার ডাক্তারিতেই ফিরে গেছেন। ২৭ ব্যাচের একজনকে চিনি যিনি বুয়েট সিএসই থেকে পাশ করে পররাষ্ট্র ক্যাডারে যোগদান করে কয়েকমাসের মধ্যেই জব ছেড়ে তার প্রিভিয়াস কর্মস্থল তৎকালীন একটেল নামক টেলিকমে ব্যাক করেছিলেন।

৪। প্রশাসন ক্যাডারের ২৫ তম ব্যাচের এক আপুকে চিনতাম, উনি মাত্র ২ সপ্তাহ জব করে আবার তার প্রিভিয়াস পেশা ডাক্তারিতে চলে গিয়েছিলেন। আমার ব্যাচের ২ জন বাংলাদেশ ব্যাংকে জব করতেন, কিছুদিন প্রশাসনে জব করে পুনরায় সেখানে ব্যাক করেন। বুয়েটের একজন ছিলেন, ইউএসএ তে পিএইচডি করার সুযোগ পাওয়ায় প্রশাসনের বদলে সেটিকেই বেছে নেয়।

এরকম আরও অনেক এক্সাম্পেল দেয়া যাবে। যাদের কথা বললাম, তাদের দৃষ্টিভঙ্গিতে বিসিএস এর চেয়ে অন্য অপশনটিই অধিক গ্রহণযোগ্য ছিল। বর্তমানে বিসিএস নিয়ে যে ক্রেজ, বিশেষ করে জেনারেল ক্যাডারের প্রতি যে হারে আকর্ষণ বেড়েছে, তা একটি দেশের উন্নয়নের প্রেক্ষাপটে কতটা পরিপূরক তা হয়ত সময়ই বলে দেবে।

যোগ্য ব্যাক্তিকে যোগ্য সম্মান না দিলে তার ইমপ্যাক্ট একসময় পড়বেই। যেমন, একটি কমন অসঙ্গতি লক্ষ্য করছি, একজন ডাক্তার বা ইঞ্জিনিয়ার বিসিএস দিয়ে তার জন্য প্রযোজ্য ক্যাডারে যোগ দিলেন,আর অন্যদিকে তারই ব্যাচমেট তার ব্যাকগ্রাউন্ড বদল করে চলে আসলেন কোন একটি জেনারেল ক্যাডারে। নিঃসন্দেহে বলা যায়, প্রথমটিই অধিক গ্রহণযোগ্য, অথচ হালের ক্রেজে এখন গ্রহণযোগ্য হচ্ছে উল্টোটা।

এর সবচেয়ে বড় উদাহরণ হচ্ছে- ৩০ তম বিসিএস এ সম্বলিত মেধা তালিকায় ২য় স্থান অধিকারী ব্যক্তিটি, যিনি ২য় হয়েও তার চয়েজ অনুযায়ী হেলথ ক্যাডারের জন্য সিলেক্টেড হয়। অথচ উনি ফরেন, প্রশাসন, পুলিশ বা ট্যাক্স যাই দিতেন না কেন, সেখানেই ১ম হতেন। তখন ওনাকে নিয়ে যে কী ক্রেজটা চলত তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না! আর এখন ওনার নামটাই কেউ হয়ত জানে না! অথচ স্বাভাবিক প্রেক্ষাপটে সি ইজ ১০০% কারেক্ট/নরমাল!!!

যাই হোক, দিন শেষে বিসিএস একটা জব!

এর বেশি কিছুই না! বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে হয়ত এটা একটা ক্রেজে পরিণত হয়েছে, কিন্তু একটা দেশ যতই উন্নত রাষ্ট্রের কাতারে সামিল হতে থাকে, এই ধরণের জবের আকর্ষণ ততই কমতে থাকে।
আমার স্বল্প সময়ের জবে সৌভাগ্যক্রমে কয়েকটি দেশে ট্রেনিং এর সুযোগ হয়েছে, এখনও আমি স্কলারশীপ নিয়ে জাপানের একটি ভার্সিটিতে মাস্টার্স করছি , তাই সুযোগ হয়েছে সে সব দেশের সরকারি কর্মকর্তাদের সাথে মত-বিনিময় করার।

যখন তাদের বলি যে আমাদের দেশে লোকজন ভার্সিটির জব ছেড়ে, ডাক্তারি-ইঞ্জিনিয়ারিংছেড়ে, ব্যাংক জব ছেড়ে কিংবা কর্পোরেট জব ছেড়ে সরকারি জবে (জেনারেল ক্যাডারে) চলে আসে, তখন অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তাদের বিস্ময়ের মাত্রা থাকে না! শেষমেশ অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তাদের মতামত থাকে এই যে, উন্নয়নশীল দেশের প্রেক্ষাপটে হয়ত এটা বাস্তবতা, কিন্তু যতই উন্নত হবে দেশ, এসব জবের ক্রেজ ততই কমবে।
কাজেই, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে, বিশেষ করে সামাজিক নিরাপত্তার বিবেচনায় বিসিএস একটি ভালো চয়েজ, বিসিএস ক্যাডার হওয়া একটা ভালো এচিভমেন্ট, কিন্তু কখনোই এটা বেস্ট বা লাইফের একমাত্র এচিভমেন্ট হতে পারে না!

আমাদের দেশের ইয়ং জেনারেশন তো অনেক ক্রিয়েটিভ! একটা মাত্র টার্গেট নিয়ে বসে থাকা কখনই কোন ক্রিয়েটিভ ব্যক্তির বৈশিষ্ট হতে পারে না!

About khan

Check Also

প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগঃ (Corona virus) নিয়ে সাম্প্রতিক প্রশ্ন উত্তর

Corona virus)সাম্প্রতিক প্রশ্ন (#collected) ১) করোনা ভাইরাস কত সালে আবিষ্কার হয়? উঃ ১৯৬০ ২) কোভিড-১৯ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You cannot copy content of this page