Tuesday , October 27 2020
Breaking News
Home / Tips / এগ পোচের একেবারে আলাদা ও অন্য স্টাইলের ৪টি রেসিপি

এগ পোচের একেবারে আলাদা ও অন্য স্টাইলের ৪টি রেসিপি

ডিম খেতে যাঁরা ভালোবাসেন তাঁদের কাছে ডিমের যেকোনও পদই অত্যন্ত সুস্বাদু। তাই ডিম প্রেমীদের জন্য আজকের প্রতিবেদনটি হতে চলেছে অত্যন্ত লোভনীয়। কারণ আজ থাকছে ৪টি ভিন্ন স্বাদের ডিমের পোচের রেসিপি, যা হয়তো আপনারা আগে কখনওই চেখে দেখেননি।

রেসিপি-১ঃ এগ পোচ ইন স্পাইসি সস উপকরণঃ ক্যাপসিকাম কুচি -২ (মাঝারি মাপের) পেঁয়াজ কুচি -৩ (মাঝারি মাপের) কাঁচা লঙ্কা -২-৩টি রসুনকুচি -৪-১০টি আদা-রসুনের পেস্ট -১ চামচ টমেটো পিউরি-১ কাপ (১০০ গ্রাম) রান্নার তেল -৪ চামচ গোটা জিরে -১/ ২ চা-চামচ হলুদ গুঁড়া -১/ ২ চা-চামচ লাল মরিচ গুঁড়ো -১ চামচ জিরা গুঁড়া -১/২ চামচ ধনে গুঁড়ো -১/২ চামচ গরম মশলা গুঁড়ো -১/২ চামচ নুন- স্বাদমতো গোলমরিচ প্রয়োজনমতো ইতালিয়ান মিক্সড হার্ব (নাও দিতে পারেন) ধনে পাতা কুচি- পরিমাণমতো

প্রণালীঃসবার প্রথমে কড়াই গরম করে তাতে জিরে দিয়ে দিন, জিরে ভাজা হয়ে গেলে তার মধ্যে রসুন কুচি এবং কাঁচালঙ্কা কুচি দিয়ে দিন। রসুনের রঙ বদলে গেলেই এর মধ্যে পেঁয়াজ এবং ক্যাপসিকামটা দিয়ে ঢাকা দিয়ে রান্না করুন। দুটো ভালমতো ফ্রাই হয়ে গেল এর মধ্যে আদা-রসুনের পেস্টটা দিয়ে দিন। ভালো করে মিক্স করে নিয়ে এর মধ্যে হলুদ গুঁড়ো, লাল লঙ্কার গুঁড়ো, জিরে গুঁড়ো, ধনে গুঁড়ো দিয়ে আবারও ভালো করে মিশিয়ে মশলা ভেজে নিন।

এখন এর মধ্যে টমেটো পিউরি দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে ঢাকা দিয়ে ২ মিনিট রান্না করুন। এরপর ঢাকনা খুলে জল দিন। এবার নুন এবং গরম মশলা যোগ করুন ঢাকা দিয়ে রান্না করলে গ্রেভি অনেকটা ঘন হয়ে যাবে, এরপর আঁচ কমিয়ে একটা একটা করে ডিম ফাটিয়ে গ্রেভির মধ্যে দিয়ে দিন। এবার ডিমের ওপর নুন ছিটিয়ে দিয়ে ঢাকা দিয়ে রান্না করুন। পোচ শক্ত হয়ে এলে ওপর থেকে গোলমরিচ গুঁড়ো, মিক্সড হার্ব এবং ধনেপাতা ছড়িয়ে পরিবেশন করুন।

রেসিপি-২ঃ টমেটো সসে ডিমের পোচ উপকরণঃ ১ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল১টি মাঝারি পেঁয়াজ কুচনো ২ টি কোয়া রসুন, কুচনো
১টি রেড বেল পেপার কুচনো ২ টি ক্যান ডাইসড টমেটো ২ চামচ টমেটো পেস্ট ১ চা চামচ মরিচ গুঁড়ো ১ চা চামচ জিরা ১ চামচ পেপরিকা ১ চামচ চিনি লবণ এবং গোলমরিচ গুঁড়ো ৬ টি ডিম

সাজানোর জন্য পার্সলে প্রণালীঃ
সবার প্রথমে মাঝারি আঁচে একটি ফ্রাইং প্যানে অলিভ অয়েল গরম করে তার মধ্যে পেঁয়াজ দিয়ে দিন এবং পেঁয়াজ নরম হওয়া হওয়া পর্যন্ত প্রায় ৫মিনিট ধরে রান্না করুন। এরপর এর মধ্যে রসুনের কুচি দিয়ে নাড়তে থাকুন।এবার এর মধ্যে লাল বেল পেপার কুচি দিয়ে মাঝারি আঁচে নরম হওয়া পর্যন্ত ৫-৭ মিনিট ধরে রান্না করতে থাকুন।

এর মধ্যে টমেটো পেস্ট এবং টুকরো করা টমেটো দিয়ে নাড়ুন এবং সব মশলা এবং চিনি দিন। নুন এবং গোলমরিচ দিয়ে ১০-১৫ মিনিটের জন্য মাঝারি আঁচে সিদ্ধ করতে দিন। আপনার স্বাদ অনুসারে সিজনিং যোগ করুন। বেশি স্পাইসি করতে বেশি করে চিলি ফ্লেক্স এবং মিষ্টি করতে বেশি করে চিনি যোগ করুন।

এবার টমেটোর মিশ্রণের উপরে ডিমগুলি ভেঙে দিয়ে দিন, গ্রেভির মাঝে একটি এবং প্যানের চারপাশে বাকি পাঁচটি দিয়ে দিন। এবার প্যানটি ঢাকা দিয়ে ১০-১৫ মিনিটের জন্য রান্না করুন, যতক্ষণ না ডিম সেদ্ধ হচ্ছে। ওপর থেকে তাজা পার্সলে পাতা ছড়িয়ে পরিবেশন করুন।

রেসিপি-৩ঃ মেঘের মত ডিম পোচ উপকরণঃ ৪টি ডিম ২ টেবিল চামচ কুচনো পেঁয়াজ পাতা চিজ নুন প্রণালীঃ সবার প্রথমে ওভেনটাকে প্রিহিট করে নিন ৪২৫ ডিগ্রিতে। এবার ডিমের থেকে সাবধানে কুসুমটা আলাদা করে নিন। এবার ডিমের সাদা অংশে একটু নুন দিয়ে একটা বিটার দিয়ে এটা ফেটিয়ে নিন। এবার একটি ট্রে-তে পার্টমেন্ট পেপার দিয়ে, তার ওপর মিক্সারটা চারভাগে ভাগ করে দিয়ে দিন।

একটা চামচের সাহায্যে মাঝের অংশে একটটা জায়গা তৈরি করুন। এবার এটাকে ৩মিনিটের জন্য বেক করে নিন, দেখবেন চারিপাশে একটা হালকা সোনালী রঙ এসেছে। এবার এর মধ্যে ডিমের কুসুমটা দিয়ে দিন এবং নুন ছিটিয়ে দিয়ে আবার ওভেনে ৩ মিনিটের জন্য বেক করে নিলেই তৈরি ডিমের মেঘ।

রেসিরি-৪ঃ আফগানি স্টাইল ব্রেকফাস্ট উপকরণঃডিম-৪টে পেঁয়াজ- ১টি মাঝারি মাপের আলু- ১টি মাঝারি মাপের টমেটো কুচি- পরিমাণমতো অলিভ অয়েল- ৪ টেবিলচামচ টমেটো পেস্ট- ১/২ চা-চামচ গোটা কাঁচালঙ্কা- ৩টে নুন এবং গোলমরিচ প্রণালীঃ গ্যাসে অলিভ অয়েল গরম করে নিয়ে এর মধ্যে আলুর টুকরো এবং টুকরো করে রাখা পেঁয়াজটা দিয়ে রান্না করে নিন। এবার এর মধ্যে নুন এবং গোলমরিচ দিয়ে দিন। এবার এর মধ্যে টমেটো কুচি দিয়ে ঢাকনা দিয়ে খানিকটা দমে রান্না করুন, যখন সব উপকরণ একসঙ্গে মিশে নরম হয়ে এলে এতে টমেটো পেস্টটা দিয়ে দিন।

এবার এর মধ্যে এক এক করে সব ডিমগুলি ভেঙে দিয়ে দিন। এর ওপর কিছু গোটা লঙ্কা দিয়ে দিয়ে ঢাকনা দিয়ে রান্না হতে দিন। ডিম রান্না হয়ে গেলে একটু ঠান্ডা করে পরিবেশন করুন।

About Dolon khan

Check Also

চাল ধোওয়া পানি অথবা ভাতের মাড় কখনো ফেলবেন না, কারণ তা অবিশ্বাস্য কাজের!

একবার ভাত হয়ে গেলে, ফ্যান বা মাড়টা কি কখনও রেখে দিয়েছেন? সুতির জামা-কাপড়ে মাড় দেওয়ার ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x

You cannot copy content of this page