Tuesday , April 20 2021
Breaking News
Home / Health / ‘স্টোন সার্জারি’র নামে রোগীর কিডনি কেটে নিলেন চিকিত্‍‌সক!

‘স্টোন সার্জারি’র নামে রোগীর কিডনি কেটে নিলেন চিকিত্‍‌সক!

বেসরকারি হাসপাতালে স্টোন অপারেশন করাতে এসে কিডনি হারালেন এক রোগী। রোগী বা তাঁর পরিবারের কাউকে কিচ্ছুটি না জানিয়ে ওই রোগীর একটি কিডনি কেটে বের করে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ, বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পরেই রোগীর পরিবারের সঙ্গে রফা করার চেষ্টা করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ঘটনাটি ঘটেছে নীতীশ রাজ্য বিহারের খাস রাজধানী শহরে।

সূত্রের খবর, কিডনির পাথর অপারেশন করাতে দিন কয়েক আগে পটনার কঙ্করবাগ থানা এলাকার একটি বেসরকারি ক্লিনিকে ভর্তি হন বছর কুড়ির এক যুবক। কিডনির স্টোন অপারেশন করাতে বেগুসরাই থেকে পটনায় আসেন ওই যুবক। অস্ত্রোপচারের কয়েক দিন পরেও তলপেটের ব্যথা না কমায়, ওই যুবকের পরিবারের লোকেরা সংশ্লিষ্ট ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলেন। সেসময় ডাক্তারের কথা শুনে তাঁরা হতবাক হয়ে পড়েন। তাঁদের জানানো হয়, ওই যুবকের একটি কিডনি বাদ দিতে হয়েছে।

পরিবারের অভিযোগ, তলপেটে ব্যথার কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ প্রথমে বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছিল। অনেক পীড়াপীড়ির পর, চাপের মুখে অস্ত্রোপচারকারী চিকিত্‍‌সক স্বীকার করেন একটি কিডনি কেটে নেওয়া হয়েছে। তিনি রোগীর স্বজনদের কাছে ক্ষমাও চান। অর্থের বিনিময়ে রফা করারও প্রস্তাব দেন ওই চিকিত্‍‌সক।

এই ঘটনার খবর চাউর হওয়ার পরেই পটনার ওই বেসরকারি হাসপাতাল চত্বরে ব্যাপক উ’ত্তেজনা তৈরি হয়। লোকজন হাসপাতাল চত্বরে ভিড় করতে থাকেন। পুলিশ এসে শেষপর্যন্ত পরিস্থিতি সামাল দেন। বিক্ষোভকারীদের বুঝিয়ে হাসপাতাল থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

পরিবারের সন্দেহ, কিডনি কেটে তা পাচার করা হয়েছে। যদিও, অভিযুক্ত চিকিত্‍সকের বক্তব্য, রোগীর ডান কিডনিতে পাথর হয়েছিল। অস্ত্রোপচারের সময় ব্যাপক র’ক্তক্ষরণ হতে থাকে। রোগীকে বাঁচাতেই কিডনিটি বাদ দিতে হয়েছে। পুলিশি জিগ্যাসাবাদে ডাক্তার আরও জানান, একটি কিডনি যে বাদ দিতে হবে, পরিবারকে তা জানানো হয়েছিল। পরিবারের সঙ্গে কথা বলেই কিডনি বাদ দেওয়া হয়। কিন্তু, রোগীর স্বজনরা এখন তা অস্বীকার করছে।

রোগীর পরিবারের বক্তব্য, রোগীকে যখন হাসপাতালে আনা হয়, কিডনির কোনও সমস্যা ছিল না। তা হলে কী উদ্দেশে কিডনি কেটে বের করে নেওয়া হল? সূত্রের খবর, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পরিবারের সঙ্গে কথা বলে শেষ পর্যন্ত ১০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে রাজি হয়। ১০০০ টাকার স্ট্যাম্প পেপারে সই করিয়ে রোগীর পরিবারের হাতে ১০ লক্ষ টাকা তুলে দেওয়া হয়েছে।

জানা গিয়েছে, রফার পরেই শেষ পর্যন্ত থানা থেকে অভিযোগ প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। সুচিকিত্‍‌সার জন্য রোগীকে অন্য একটি হাসপাতালেও স্থানান্তরিত করা হয়েছে। তবে, সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে এ বিষয়ে আর কথা বলতে রাজি হয়নি পরিবারটি।

About khan

Check Also

মুখের দুর্গন্ধ হ্রাস করে, ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায় ফিটকিরি, কিভাবে জানুন

প্রতিটি বাড়িতেই ফিটকিরি পাওয়া যায়। মানুষ সাধারণত এটি জল পরিষ্কার করতে ব্যবহার করে। তবে এর ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *