Friday , April 23 2021
Breaking News
Home / Entertainment / মায়ের বিয়ে দিতে ৫০ বছর বয়সী ‘হ্যান্ডসাম’ পুরুষ খুঁজছে মেয়ে!

মায়ের বিয়ে দিতে ৫০ বছর বয়সী ‘হ্যান্ডসাম’ পুরুষ খুঁজছে মেয়ে!

মেয়ে চান মায়ের বিয়ে দিতে। অবিশ্বা’স্য মনে হলেও ঘটনা সত্যি! এরইমধ্যে পাত্র খুঁ’জতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে বিজ্ঞাপন দিয়েছেন মেয়ে। শর্ত, তার হবু বাবাকে ৫০ বছর বয়সী কিন্তু হ্যান্ডসাম হতে হবে।

ঘটনাটি ভারতের। টুইটারে মায়ের বর খুঁ’জতে বিজ্ঞাপনটি দেন আস্থা ভারমা নামে এক তরুণী।

গতকাল বৃহস্পতিবার আস্থা তার মায়ের সঙ্গে নিজের একটি ছবি পোস্ট করে লেখেন, ‘আমার মায়ের জন্য ৫০ বছর বয়সী হ্যান্ডসাম পুরুষ খুঁ’জছি! পাত্রকে অবশ্যই ভেজিটে’রিয়ান হতে হবে, কখনো ম’দ্যপা’ন করা যাবে না এবং সুপ্রতিষ্ঠিত হতে হবে।’

টুইটের পর পরই আস্থার বিজ্ঞাপনটি ভা’ইরাল হয়। অসংখ্য কমে’ন্ট পড়েছে সেই পোস্টে। মা-মেয়েকে সাধুবাদ জানিয়েছেন অনেকেই।

অনেকে আবার প্রশ্ন করেছে- পাত্র খুঁ’জতে তারা কোনো ঘটক বা বিবাহ-এজেন্সির কাছে যাননি কেন? আস্থা উত্তরে বলেছেন, ‘গিয়েছিলাম। এমনকি টি’ন্ডারও ব্যবহার করা হয়েছে। কিন্তু আশানু’রূপ ফল মেলেনি। তাই, বা’ধ্য হয়েই টুইটারের শর’ণাপ’ন্ন হতে হয়েছে।

এক কাঁকড়ার দাম ৩৯ লাখ টাকা!

একটি কাঁকড়া বিক্রি হয়েছে ৩৯ লাখ টাকায়। জাপানের রাজধানী টোকিওতে বৃহস্পতিবার ওই কাঁকড়ার নিলাম হয়। সেখানে এই তুষার কাঁকড়া (স্নো ক্র্যাব) রেকর্ড দামে কিনে নেন এক ব্যক্তি।

জানা গেছে, এক কেজি ২০০ গ্রাম ওজন ওই কাঁকড়ার। আসলে জাপানের টটোরি এলাকায় এই সপ্তাহ থেকেই শুরু হয়েছে শীতকালীন সামুদ্রিক খাবারের মওশুম। সেখানে অনেক সময় দেখে ভালো লেগে গেলে অনেকেই চড়া দাম দিয়ে এমন কাঁকড়া বা টুনা মাছ কিনে নেন।

তবে এই কাঁকড়া একজন স্থানীয় খুচরা ব্যবসায়ী কিনেছেন। তিনি সেটি বড় কোনো জাপানি রেস্তরাঁয় বিক্রি করবেন বলে জানিয়েছে স্থানীয় সংবাদমাধ্যম।

যে এলাকায় কাঁকড়াটি নিলাম হয়েছে, সেখানকার স্থানীয় প্রশাসনের একজন কর্মকর্তা দাবি করেছেন, একটি কাঁকড়ার ক্ষেত্রে এটি বিশ্বে সব থেকে বেশি দাম। এই কাঁকড়ার দামের বিষয়টি যাতে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে ওঠে তার আবেদন করা হবে বলেও জানিয়েছেন প্রশাসনিক কর্মকর্তারা।

About khan

Check Also

বিয়ে বাড়ীতে ভাবি ও দেবরের দুষ্টুমির ভিডিও ভাইরাল, (ভিডিও)

বিয়ে মানে খুশি আনন্দ, যার বিয়ে হয় তার যদি ভাবি থাকে তাহলে অনেক বেশি আনন্দ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *