Tuesday , April 20 2021
Breaking News
Home / Health / ওজন কমাতে রোজ খান কলা: গবেষকরা বলছে, কলার প্রতিটা কামড়ে রয়েছে ম্যাজিক

ওজন কমাতে রোজ খান কলা: গবেষকরা বলছে, কলার প্রতিটা কামড়ে রয়েছে ম্যাজিক

কলা অত্যন্ত সুস্বাদু একটি ফল। তবে মুটিয়ে যাওয়া বা ব্লাড-সুগার বেড়ে যাওয়ার ভয়ে অনেকেই খান না। এবার সময় এসেছে ভয়কে দূরে ঠেলার। কারণ, গবেষণা বলছে, কলাতেই রয়েছে সুগার আর ওজন নিয়ন্ত্রণের জাদুমন্ত্র। এখানেই শেষ নয়, কোলন ক্যান্সার, হৃদরোগের ঝুঁকিও কমায় কলা। সূত্র: হেলথলাইন।

গবেষকরা বলেন, কলার প্রতিটা কামড়ে রয়েছে ম্যাজিক। খাদ্যগুণে যে কোনো দামি ফলকে অনেক পেছনে ফেলবে কলা। ফাইবার, অ্যান্টি অক্সিড্যান্টে ভরপুর এই ফলে ফ্যাট নেই বললেই চলে। কাঁচা কলা সমৃদ্ধ পেকটিন আর রেজিস্ট্যান্ট স্টার্চে। বিশেষজ্ঞরা জানান, খাওয়ার পর কলা খেলে ব্লাড-সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে থাকে। কলায় থাকা রেজিস্ট্যান্ট স্টার্চ ইনসুলিন সেনসিটিভিটি বাড়াতে সাহায্য করে।

তাদের মতে, দিনে ১৫-৩০ গ্রাম রেজিস্ট্যান্ট স্টার্চ ইনসুলিন সেনসিটিভিটি ৩৩-৫৫ শতাংশ পর্যন্ত বাড়ায়। পেকটিন কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। কলায় থাকা ফাইবার হজমে সাহায্য করে। অনেকই ভাবেন, কলা খেলেই বেড়ে যাবে ওজন। তবে বিশেষজ্ঞরা জানান, এটা মোটেই ঠিক নয় যে, কলায় থাকা রেজিস্ট্যান্ট স্টার্চ ক্ষুধা কমিয়ে দেয়। ফাইবার সমৃদ্ধ কলা ওজন কমাতে সহায়ক হয় বলেই দাবি। কলা পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়ামে ভরপুর।

এদিকে গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে পটাশিয়াম সমৃদ্ধ ডায়েট হৃদরোগের ঝুঁকি ২৭ শতাংশ পর্যন্ত কমায়। যে নারীরা সপ্তাহে ২ থেকে ৩ বার কলা খান, তাদের কিডনির অসুখ হওয়ার হার ৩৩ শতাংশ কম। এছাড়া ব্যায়ামের পর পেশির ক্লান্তি এক ঝটকায় কমিয়ে দেয় কলায়। সুন্দর ত্বক পেতেও কলার জুড়ি নেই।

নিম্নে আরো পড়ুন: চোখ ভালো রাখতে ভরসা রাখুন এসব খাবারে

প্রযুক্তির উন্নয়নে সময়ের সঙ্গে তাল মেলাতে কম্পিউটার, ল্যাপটপ, মোবাইল ইত্যাদি ব্যবহারের কারণে শরীরের মহা মূল্যবান অঙ্গ চোখ দু’টোর ওপর পড়ছে বাড়তি চাপ।
তাই চোখকে সুস্থ রাখেতে প্রতিদিন খাদ্য তালিকায় শাক-সবজি রাখা প্রয়োজন। শাক-সবজি থেকে শুরু করে মাছ, মাংস এবং ফলমূলের মধ্যে বেশি পরিমাণে ভিটামিন এ পাওয়া যায়।

ভিটামিন এ- এর অভাবজনিত অন্ধত্ব একটি আলাদা রোগ। ভিটামিন এ থাকে লিভারে। এ জন্য দেখবেন কর্ড লিভার ওয়েলের ক্যাপসুল খাওয়ানো হয়। যেসব খাবার খাওয়াবেন-
> ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাবার হচ্ছে দুধ, ডিম, মাছ, মাংস ইত্যাদি। স্নেহ ও প্রোটিন জাতীয় খাবারের মধ্যে ভিটামিন এ বেশি থাকে।

> দুধের সঙ্গে যষ্টিমধু মিশিয়ে খেলে ভালো ফল পাওয়া যায়। এক চামচ যষ্টিমধু গরুর দুধে সঙ্গে মিশিয়ে দিনে দুইবার করে খেতে হবে।

> দৃষ্টিশক্তি সতেজ রাখতে দেশী সবুজ শাক নিয়মিত খান। সবুজ শাককে চোখ সুরক্ষার প্রধান খাদ্য। সবুজ শাক আমাদের চোখকে ইউভি রশ্মির ক্ষতি হওয়া থেকে বাঁচায়। আমাদের খাওয়ার টেবিলে প্রতিদিন শাক রাখা আবশ্যকীয়।

> চোখের জন্য ছোট মাছ। ওমেগা-৩ এ ভরপুর ছোটমাছ যেমন- টুনা মাছ বা পুঁটি মাছ আমাদের রেটিনাসহ নার্ভ সেলগুলোকে শক্তিশালী করতে ভূমিকা রাখে।

> সারা বছরই পাওয়া যায় এমন দুইটি ফল হলো- কমলালেবু এবং মাল্টা। ভিটামিন-সি’তে পরিপূর্ণ এই ফল দুইটিতে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে। যা আমাদের কর্নিয়াকে সুরক্ষা করে এবং চোখে ছানি পড়া থেকে বাঁচায়।

> গাজরে থাকে বেটা-ক্যারোটিন। যা রেটিনাকে খুবই ভালো রাখে। ফলে আমাদের চোখে ছানি পড়ার দুর্ভাবনা থাকে না। গবেষকরা বলেন, আমাদের প্রতি সপ্তাহে অন্তত কয়েকবার গাজর খাওয়া উচিত।

About khan

Check Also

গলা থেকে মাছের কাঁটা নামানোর সহজ ৫ টি উপায়, জেনে রাখুন কাজে আসবে

খেতে বসে গলায় মাছের কাঁটা ফোটেনি এমন বাঙালি বোধহয় খুঁজে পাওয়া মুশকিল। অনেকে এখনও আছেন ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *