Saturday , April 17 2021
Breaking News
Home / Religion / উপু’ড় হয়েই নামাজ ও কোরআন পড়ে হাত-পা’বি’হীন ছে’লেটি

উপু’ড় হয়েই নামাজ ও কোরআন পড়ে হাত-পা’বি’হীন ছে’লেটি

নাম টিও সাতরিও। ছে’লেটির বয়স ১৫ বছর’ হাত-পা নেই তার। চলা-ফেরা ক’রতে হয় তার গড়িয়ে-গড়িয়ে। আর এভাবেই উপুর হয়ে শুয়ে নামাজ ও কোরআন প’ড়ে ছে’লেটি।

হাজারো বাঁ’ধা বিপত্তির সম্মু’খীন হয়েও কোরআন শিক্ষা নিতে ভুলেনি সে। তার পরিবারের স’ঙ্গে সে বসবাস করে। জ’ন্মগত ভাবেই টিও হাত-পা বিহীন। তার মতে’ হাত-পা থাকলে আমি বাবা মাকে সাহায্য ক’রতে পারতাম। কোরআন শিক্ষার জন্য নিজেই স্কুলে যেতে পারতাম। আমা’র শিক্ষকদেরকে বাড়ি বয়ে এসে নিয়ে যেতে হতো না।

ছোট্ট এই কি’শোরের স্বপ্ন ছিল পু’লিশ অফিসার হওয়ার। টিও বলেন’ আল্লাহর ইচ্ছা থাকলে আমি অবশ্যই তা হতে পারতাম। তবে শা’রীরিক প্রতিব’ন্ধকতার কারণে তা আর সম্ভব নয়। তাই সেই স্বপ্ন আর দেখি না। কিছু কাজ আছে যেগুলো আমি ক’রতে পারি না। যেমন- একা খেতে পারি না’ গোসল এমনকি কাপড় পরতেও পারি না।

তবে আমি মুখ দিয়ে লিখতে পারি। লেখা-পড়া এমনকি ভিডিও গেম খেলতেও পছন্দ করি আমি। ফুটবল আমা’র প্রিয় খেলা। হয়তো ভাবছেন হাত পা ছাড়া আমি কী’ ভাবে খেলি ? মাঝে-মাঝে মুখ দিয়েই আমি বল খেলি। আর ভিডিও গেম খেলার সময় চিবুক ও কাধের সাহায্য নিতে হয়। অন্যান্যদের মতো আমিও স্মা’র্ট ফোন ব্যবহার করি।

এমনকি ফেসবুক’ হোয়াটস অ্যাপ সবই ব্যবহার করি আমি। ঠোঁটের সাহায্যে ফোন চালাই আমি। টিও’র মা মিমি বলেন’ তাকে খাওয়ানো ও দেখ-ভালের সব দায়িত্বই আমি পা’লন করি। আর গোসল ও কাপড় পরায় তার বাবা। ভিডিও গেইমের প্রতি তার আক’র্ষণ অনেক। এ ছাড়াও তার মেধার প্রশংসা স্বয়ং স্কুলের প্রিন্সিপাল পর্যন্ত করেন।

গণিতে বেশ দক্ষ সে। টিওকে নিয়ে আমি সত্যিই গর্বিত। আমা’র মোট তিনটি সন্তান। টিওর বড় ভাই বোনেরা স্বা’ভাবিক ও সু’স্থ। তবে সে শা’রীরিক ভাবে প্রতিব’ন্ধী হিসেবে জ’ন্ম নেয়। প্রথমে তার ভবিষ্যৎ নিয়ে ভেবে চিন্তিত হয়ে প’ড়েছিলাম। বর্তমানে সত্যিই আমি টিওর জন্য অনেক গর্বিত।

সে আমাদের জন্য সৌভাগ্যের। মুখ দিয়েও সুন্দর করে লিখতে পারে আমা’র ছে’লে। তার গুণের শে’ষ নেই। আম’রা তাকে স্বা’ভাবিক মানুষই ভাবি। আমা’র জী’বন অনেক ক’ঠিন টিও অনেকটা গম্ভীর সুরে বলছিলেন। মাঝে মাঝে হ’তাশ হয়ে পড়ি। তবে আমা’র স্কুলের প্রিয় ব’ন্ধু ও সহপাঠি টেন্ডিকে দেখে আমি নতুন ভাবে বাঁচতে শিখেছি।

সেও এক প্রতিকূল অবস্থার মধ্য দিয়ে জী’বন যাপন করছে। সে স’ম্পূর্ণ স্বা’ভাবিক মানুষ হয়েও অস’ম্পূর্ণ। কারণ সে কানে শোনে না। অথচ আমি কথাও বলতে পারি আবার কানেও শুনি। তাই টেন্ডিকে দেখলে নিজে’র ক’ষ্ট অনেকটাই লাঘব হয়।

টেন্ডি কানে না শুনলেও সবকিছুই শিখতে ও জানতে চায়। আম’রা দু’জনই একে অ’পরকে সাহায্য করি। সে হয়ে উঠেছে আমা’র হাত আর আমি হলাম তার কান। এতো দিনে বুঝেছি আমাকে ল’ড়তে হবে। আশা হারালে চলবে না। সবাইকে বলছি’ আল্লাহর কাছে সাহায্য চান। হাল ছাড়বেন না’ হ’তাশ হবে না।

শা’রীরিক ভাবে আমি অক্ষম হলেও আমি নিজেকে সেভাবে ভাবি না। কারণ আমি আমা’র জী’বন’ প্রার্থনা ও নিরন্তর ল’ড়াইয়ের মাধ্যমে কিছু একটা ক’রতে চাই। সবাই আমা’র জন্য দোয়া করবেন।

About khan

Check Also

পুরো বিশ্বে কোরআন তেলাওয়াতে সে’রা বাংলাদেশী ইলমান

আন্তর্জাতিক কোরআন তেলাওয়াত প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ান হয়েছে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মোঃ ইলমান হাফিজ বিন আনোয়ার। ওম’র এন্ড ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *