Saturday , October 1 2022
Breaking News
Home / Top / ইস! কৌশলটা আগে জানা থাকলে হয়তো বাবা স্ট্রোক করে মারা যেতেন না!

ইস! কৌশলটা আগে জানা থাকলে হয়তো বাবা স্ট্রোক করে মারা যেতেন না!

ইস! কৌশলটা আগে জানা – চীনের অধ্যাপকরা বলছেন যে কারো স্ট্রোক হচ্ছে যদি এমন দেখেন তাহলে আপনাকে নিম্নলিখিত পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে।যখন কেউ স্ট্রো’কে আ’ক্রান্ত হয় তার মস্তিষ্ক কোষ ধীরে ধীরে প্রসারিত হয়।মানুষের ফার্স্ট এইড এবং বিশ্রামের প্রয়োজন হয়।

ইস! কৌশলটা আগে জানা থাকলে বাবা স্ট্রো’ক করে হয়তো মা’রা যেতেন না যদি দেখেন স্ট্রোকে আ’ক্রান্ত ব্যক্তিকে সরানো যাবে না কারন মস্তিষ্কে র’ক্তক্ষরণ বি’স্ফোরিত হতে পারে, এটা ভাল হবে যদি আপনার বাড়ীতে পিচকারি সুই থাকে, অথবা সেলাই সুই থাকলেও চলবে ,

আপনি কয়েক সেকেন্ডের জন্য আ’গুনের শিখার উপরে সুচটিকে গরম করে নে’বেন যাতে করে জী’বাণুমু’ক্ত হয় এবং তারপর রোগীর হাতের 10 আঙ্গুলের ডগার নরম অংশে ছোট ক্ষ’ত করতে এটি ব্যবহার করুন। এমন ভাবে করুন যাতে প্রতিটি আঙুল থেকে র’ক্তপাত হয়, কোন অভিজ্ঞতা বা পূর্ববর্তী জ্ঞানের প্রয়োজন হবে না ।

কেবলমাত্র নিশ্চিন্ত করুন যে আঙ্গুল থেকে যথেষ্ট পরিমাণে র’ক্তপাত হচ্ছে কি না।এবার 10 আঙ্গুলের র’ক্তপাত চলাকালীন, কয়েক মিনিটের জন্য অপেক্ষা করুন দেখবেন ধীরে ধীরে রোগী সুস্থ হয়ে উঠছে। হৃদয়কে সুস্থ রাখার চারটি সহজ উপায় !! যদি আ’ক্রান্ত ব্যক্তির মুখ বিকৃত হয় তাহলে তার কানে ম্যাসেজ করুন। এমনভাবে তার কান ম্যাসেজ করুন যাতে ম্যাসেজের ফলে তার কান লাল হয়ে যায় এবং এর অর্থ হচ্ছে কানে র’ক্ত’ পৌঁছেছে।

তারপর প্রতিটি কান থেকে দুইফোঁটা র’ক্ত পড়ার জন্য প্রতিটি কানের নরম অংশে সুচ ফুটান।কয়েক মিনিট অপেক্ষা করুন দেখবেন মুখ আর বিকৃত হবে না।আরও অন্যান্য উ’পসর্গ দেখা যায়। যত’ক্ষণ না রোগী মোটামুটি স্বাভাবিক হচ্ছে অপেক্ষা করুন। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করেই যথাসম্ভব তাড়াতাড়ি হা’সপাতালে ভর্তি করান।

জীবন বাঁচাতে র’ক্তক্ষয় পদ্ধতি চীনে প্রথাগত ভাবে চিকিৎসার অংশ হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে। এবং এই পদ্ধতির ব্যবহারিক প্রয়োগ,100% কার্যকরী প্রমাণিত হয়েছে। এই পোস্টটিকে লাইক করার চেয়ে শেয়ার করলে ব্যাপারটা সবাই জানতে পারবে।দয়া করে এটিকে বেশি বেশি করে শেয়ার করুন।যদি কেউ মনে করে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এর সাথে আলোচনা করতে পারেন।মানুষ মানুষের জন্য জীবন জীবনের জন্য।

Share

About admin

Check Also

আপনি জানেন কি মুলা আমাদের কি উপকার করে

শীত মানেই জীবাণুদের আড্ডা। আর আমাদের আশেপাশে জীবাণুদের সংখ্যা বাড়বে মানে শরীর খারাপ তো হবেই ...

Leave a Reply

Your email address will not be published.